চীনে নিষিদ্ধ জনপ্রিয় ১০ টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম

Credit:- ICT Review

সম্প্রতি চীনে অনেকগুলো  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বন্ধের পাশাপাশি  বিদেশি সিনেমা, কিছু জায়গা ভ্রমণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। (10 social media banned in China) রাষ্ট্রীয় বিধি-নিষেধের বেড়াজালে আবদ্ধ এই দেশের নাগরিকদের জীবন। চলুন দেখে নেয়া যাক কোন কোন প্রযুক্তি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে চীনের নাগরিকরা—

ফেসবুক
বিশ্বজুড়ে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকের জনপ্রিয়তা বেশি। ২০০৯ সালে বেইজিং ফেসবুক ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়ে ছিল। এখন পযর্ন্ত এ নিষেধাজ্ঞা বহাল রয়েছে।  ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ কয়েকবার চীনে সফর করেছেন। চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গেও দেখা করেছেন তিনি। বিভিন্ন সময় দাবি ওঠা সত্ত্বেও এখনো পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কোনো লক্ষণ নেই।

গুগল
চীনা প্রশাসন যতগুলো বিষয় নিষিদ্ধ করেছে তার মধ্যে গুগলও রয়েছে। চীনা নাগরিকরা জিমেইল ব্যবহারের সুবিধা থেকেও বঞ্চিত। অনেক চীনা নাগরিক গোপনে জিমেইল ব্যবহার করেন ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) এর সাহায্যে। চাইলেই তারা ইউটিউব থেকে নিজেদের পছন্দের ভিডিও দেখতে বা ডাউনলোড করতে পারছেন না।

ইনস্টাগ্রাম
অবিশ্বস্য হলেও সত্য যে, চীনের কোনো নাগরিক চাইলেই তার কোনো ছবি ইনস্টাগ্রামে ফলোয়ারদের উদ্দেশ্যে আপলোড করতে পারে না। কারণ, সেখানে রয়েছে রাষ্ট্রীয় নিষেধাজ্ঞা। এদিকে চীনের নাগরিকদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম হলো ইনস্টাগ্রাম। ইনস্টাগ্রামে এমন নজরদারির কারণ হিসেবে পাওয়া যায়, ২০১৪ সালে হংকংয়ের গণতন্ত্রের দাবিতে আন্দোলন হয়। এ আন্দোলনের অসংখ্য ছবি ইনস্টাগ্রামে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর থেকেই দেশটির সরকার ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার নিষিদ্ধ করে।

টুইটার
আমাদের দেশেও টুইটারের ব্যবহার দেখা যায়। ইতোমধ্যে অনেকেই জরুরী টুইটারে বার্তা দিয়ে আলোচনায়ও এসেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও এর বাইরে নন। এ সুযোগ কোনো চীনা নাগরিক পাচ্ছে না। কারণ, চীনের অভ্যান্তরে টুইটার ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বিশেষ করে টুইটার ব্যবহার করে মধ্যপ্রাচ্যে অনেক পালাবদল হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় অনেকগুলো দেশের ক্ষমতারও পালাবদল হয়েছে। পতন হয় কয়েক দশকের একনায়কতন্ত্রের। এ ভয় থেকেই চীনা প্রশাসন দেশটির মানুষকে টুইটার ব্যবহার করতে দিতে সমর্থন করে না।

পিন্টারেস্ট
চীনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোর মধ্যে একটি হলো পিন্টারেস্ট। জনপ্রিয় মাধ্যম হলেও চীনে এই সুবিধা ভোগ করতে অনেক ঘাম ঝড়াতে হয় নাগরিকদের। শুধু সাজানো-গোছানো বাড়িঘর, রান্না, বিয়ে, ফ্যাশন কিংবা চুলের স্টাইলের ছবি পোস্ট করার অনুমতি আছে। অনুমতি ছাড়াই কেউ স্পর্শকাতর ছবি পোস্ট করছেন কি না, তা দেখার জন্য আছে শক্তিশালী পর্যবেক্ষক টিমও কাজ করছে চীনে। গত মাসে এ জনপ্রিয় মাধ্যম ব্যবহারে নতুন বিধি-নিষেধ আরোপ করে দেয় চীনা সরকার। সেন্সর ব্যবস্থা এতোই কড়াকড়ি যে, এর সুবিধা ভোগ কারতে তার কয়েক গুণ বেশি কষ্ট করতে হয়।

স্ন্যাপচ্যাট
নিষেধাজ্ঞার তালিকায় যুক্ত হয়েছে জনপ্রিয় মেসেজিং সাইট স্ন্যাপচ্যাটের নামও। এর বদলে চীনারা নিজস্ব প্রযুক্তির মাইক্রোব্লগিং সাইট ওয়েইবো ব্যবহার করেন। অনেকেই মনে করেন, নিজস্ব মেসেজিং সাইটকে জনপ্রিয় করতেই বেইজিং বৈশ্বিক সাইটের বিরুদ্ধে সংরক্ষণমূলক নীতি বহাল রেখেছে। যদিও চীনের নাগরিকদের কাছে স্ন্যাপচ্যাটের চাহিদা রয়েছে অনেক।

ওয়েবসাইট
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পাশাপাশি ইন্টারনেট নির্ভর বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ব্যবহারেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। চীনা প্রসাশনের কাছে জিম্মি রয়েছে হাজার হাজার ওয়েবসাইট। এ তালিকায় পর্নো ওয়েবসাইট থেকে শুরু করে সাধারণ ওয়েবসাইট ও যুক্ত। যেসব ওয়েবসাইট মানবাধিকার নিয়ে কাজ করে, চীনা সরকারের সমালোচনা করে, দেশটির নাগরিকদের জন্য সেসব সাইট ব্যবহার করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

বিদেশি সিনেমা
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পাশাপাশি সিনেমা দেখাতেও রয়েছে চীনাদের নিষেধাজ্ঞা। তবে সব সিনেমাতে নয়। বিদেশি সিনেমে দেখার অনুমতি নেই চীনা নাগরিকদের। এত বড় দেশটিতে প্রতিবছর মাত্র ৩৪টি বিদেশি সিনেমা প্রদর্শনের অনুমতি রয়েছে। তাইওয়ানি বংশোদ্ভূত পরিচালক অ্যাং লি দু’বার সেরা পরিচালক হিসেবে অস্কার পেয়েছেন। তার অস্কার পাওয়া সিনেমা ‘ব্রোকব্যাক মাউন্টেইন’ ও ‘লাইফ অব পাই’ দেখা থেকেও বঞ্চিত হয়েছেন চীনারা। এ কারণে চীনারা হলিউডের সামপ্রতিক সুপারহিট সিনেমাগুলো দেখার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হন। দেশীয় সিনেমা দেখতে তাদের কোনো বাধা নেই। বিশেষ করে যেদিন তাদের সাপ্তাহিক ছুটির দিনে তাদের দলবদ্ধ হয়ে সিনেমা হলমুখী হতে দেখা যায় অনেক।

বইপত্র
চীনা নাগরিকদের বই পড়াতেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। চাইলেই যেকোন বিদেশি বই প্রকাশ করতে পারেন না চীনা প্রকাশকরা। শুধু বই পড়া কিংবা ছাপানোতেই সীমবদ্ধ নয়, জনপ্রিয় রাজনৈতিক পার্টি (তিব্বত ও কমিউনিস্ট) বিষয়ে কোনপ্রকার তথ্য প্রকাশ করাতেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। চীনের প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের অর্জিত সম্পদের হিসাব প্রকাশেও আইনগত নিষিদ্ধতা রয়েছে। গণমাধ্যমও দেশটিতে সংরক্ষিত। সরকারি অনুমতি না পেলে প্রকাশিত হয় না কোনো বই কিংবা ডকুমেন্ট।

ভিডিও ও ই-বুক
বিদেশি ওয়েব সাইট ও কনটেন্টের ওপর চীনা সরকারের হস্থক্ষেপ প্রায়ই আলোচনার বিষয় বস্তু হয়ে উঠে।
দেশটিতে ই-বুক পড়া কিংবা বিদেশি ভিডিও দেখার সুযোগ যথেষ্ট নয়। অ্যাপলের ই-বুক ও আই-টিউন সেবা প্রাপ্তি এবং ডিজনির ভিডিও দেখার সুযোগ চীনাদের কাছে অধরা। বিদেশি কোনো কোম্পানি চীনের মানুষের জন্য ই-বুক, ভিডিওসহ যেকোন ডিজিটাল সেবা দিতে চাইলে দেশটির সরকারের বিশেষ অনুমতি প্রয়োজন হয়। কমিউনিস্ট পার্টি বিরোধী কোনো তথ্য কিংবা প্রচারণা না থাকলে, তবেই এগুলো ব্যবহারের অনুমতি পাওয়া যায়।

সূত্র: সিএনএন

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY