আগামী ডিসেম্বর থেকে দেশের টেলিযোগাযোগে চতুর্থ প্রজন্মের (ফোরজি – 4G service will be launched by December) সেবা শুরু করা যাবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, ‘‘আমাদের টার্গেট হচ্ছে, নভেম্বরের শেষের মধ্যে আমরা নিলাম শেষ করবো। আর ডিসেম্বরের মধ্যে ফোর-জি সুবিধা জনগণকে দিতে পারব।’’

বুধবার টেলিযোগাযোগ বিভাগে ফোরজি লাইসেন্স বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। তারানা হালিম বলেন, এটি আমরা টার্গেট বলছি এ কারণে যে, এর মধ্যে কিছু ইকুইপমেন্ট আমদানির বিষয় আছে, সেটির উপর আমাদের হাত নেই। আমাদের টার্গেট মতো আনুষঙ্গিক কাজ সম্পন্ন করব ডিসেম্বরের মধ্যে।

ফোরজি তরঙ্গ নিলাম এবং ফোরজি সেবা দিতে অপারেটরদের বিদ্যমান প্রযুক্তি নিরপেক্ষতায় রূপান্তর বাবদ সরকার ১১ হাজার কোটি টাকা আয় করবে বলেও আশা প্রকাশ করেন প্রতিমন্ত্রী।

তরঙ্গ বরাদ্দের খসড়া নীতিমালা থেকে চূড়ান্ত নীতিমালায় কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

“আবেদন করার যোগ্যতার ক্ষেত্রে কোনো অপারেটরের বিদেশি অংশীদারকে বাংলাদেশ থেকে কোনো ঋণ না নিয়ে বিনিয়োগের যে বিধানটি ছিল, সেটি বাদ দিয়েছি; তারা বাংলাদেশের যে কোনো ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে পারবেন।”

তরঙ্গ নিলাম এবং ফোর-জি লাইসেন্সিং গাইডলাইন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন দিয়েছেন জানিয়ে তারানা বলেন, “গাইডলাইন অনুযায়ী ২১০০ মেগাহার্টজ, ১৮০০ মেগাহার্টজ এবং ৯০০ মেগাহার্টজ তরঙ্গ নিলাম হবে। এই নিলামে যে অপারেটররা আছেন তারা অংশ নিতে পারবেন।

প্রতিমন্ত্রী জানান, ফোরজি লাইসেন্সের জন্য অপারেটরদের আবেদন ফি হিসেবে পাঁচ লাখ টাকা দিতে হবে। ১০ কোটি টাকায় লাইসেন্স এবং বার্ষিক লাইসেন্স নবায়ন ফি ৫ কোটি টাকা চূড়ান্ত করা হয়েছে।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY