Credit:- BBC Bangla

প্রচুর বাঙ্গালি ইউজার এখন ডেটিং সাইটে দিনরাত চ্যাটিং করে চলছে। দরকার শুধু একটা স্মার্টফোন আর ইন্টারনেট কানেকশন। বিষয়টির নানা দিক নিয়ে ওপার বাংলার পত্রিকা এই সময়-এ প্রকাশিত একটি নিবন্ধ তুলে ধরা হলো :

ঘটনা ১: মনের কোণে ইচ্ছা বাসা বাঁধলেও ছাত্রজীবনে কোনও দিন প্রেম করা হয়ে ওঠেনি সুকল্যাণ চৌধুরীর (নাম পরিবর্তিত)৷ স্কুল -কলেজে পড়ার সময় বন্ধুরা যখন প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছে , তখন বইয়ের পাতায় মগ্ন থেকেছে মাধ্যমিকের মেধাতালিকায় জায়গা করে নেওয়া গ্রামের ছেলেটি৷ কিন্ত্ত মোটা মাইনের চাকরি পাওয়ার পর সেই ছেলেটিই যে এতটা বদলে যাবে , তা কোনও দিন কল্পনাও করেননি তার বন্ধুরা৷ চাকরি পাওয়ার পরই অনলাইন ডেটিং সাইটের মাধ্যমে কলেজ পড়ুয়া এক ছাত্রীর সঙ্গে প্রথম আলাপ৷

ঘটনা ২ : মেয়ের হাতে মোবাইল দেওয়ার পর থেকেই মনের কোণে সন্দেহ উঁকি মারছিল৷ খালি মনে হত , ফোন পেয়ে মেয়ের মাথাটা বিগড়ে যাবে না তো ? কিন্ত্ত তার পরিণতি যে এমনটা হবে , তা ভাবতেই পারেননি রেলের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা সব্যসাচী ঘোষ (নাম পরিবর্তিত)৷ তার কথায় , মেয়ে একদিন স্কুল থেকে ফিরে মাকে বলল , “মা আমার বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে সানডে ডেটিংয়ে বেরোচ্ছি৷ “ স্কুলে তার অন্য বন্ধুরাও নাকি মাঝে -মধ্যেই ডেটিংয়ে যায়৷ মেয়ের কথা শুনে মায়ের তো মাথা ঘুরে যাওয়ার জোগাড়৷ বকাঝকা , মারধর কোনও কিছুতেই কাজ হয়নি৷ তারপর বন্ধুদের পরামর্শে আপাতত শহরের এক খ্যাতনামা মনোবিদের কাছে ক্লাস টুয়েলভে পড়া একমাত্র মেয়ের কাউন্সেলিং করাচ্ছেন তিনি৷

হোয়াটসঅ্যাপ এবং ফেসবুকের মেসেঞ্জারে প্রেমালাপ৷ তারপর মাস ঘুরতে না ঘুরতে গোপনে মন্দারমণি সমুদ্র সৈকতে ডেটিং৷ বছর দু”য়েক এ ভাবে চলার পর অবশেষে সাত পাকে বাঁধা পড়তে চলেছেন শিবপুর বিই কলেজের ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ওই মেধাবী ছাত্র৷ মনের মতো জীবনসঙ্গী খুঁজে নিতে , কে না চায়৷ একটা সময় পর্যন্ত দু”হাত এক করার কাজটা করতেন মূলত ঘটকরা৷ প্রথমে কনে দেখার পালা৷

কিন্ত্ত সময় বদলেছে৷ দেখাশোনার বিয়ের সংখ্যায় ক্রমে থাবা বসাচ্ছে প্রেমের পরিণয়৷ সঙ্গে ইন্টারনেট খুললেই ডেটিং সাইটের ছড়াছড়ি৷ তাদের কত কী নাম৷ মেট ফর অল , মেট্রোডেট ডট কম , কোয়াক কোয়াক ডট ইন , শাদি ডট কম , ভিভা স্ট্রিট , কলকাতা পার্সোনালস , সাইবার ডেটিং , দেশি কিস ডট কম৷ একেক সাইটের একেক রকম নাম৷ সেখান থেকেই মনের মানুষ খুঁজে নিচ্ছেন নতুন প্রজন্মের বাঙালি তরুণ -তরুণীরা৷

ডেটিং সাইটগুলি ওয়েবকাস্ট , অন লাইন চ্যাট , টেলিফোনিক চ্যাটেরও সুবিধা দিচ্ছে৷ তার বিনিময়ে অনেকে নির্দিষ্ট হারে টাকা নিচ্ছে৷ ফ্রি ডেটিং সাইটেরও অভাব নেই৷ অ্যাপস এবং মোবাইল ডেটিংও ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে৷ কলকাতার এক অনলাইন ডেটিং সাইট সংস্থার কর্ণধার জানাচ্ছেন , যত দিন যাচ্ছে , তাদের নথিভুক্ত গ্রাহকের সংখ্যা বাড়ছে৷ কলেজ ছাত্রী থেকে ডিভোর্সি, এমনকি বিবাহিতরাও রয়েছেন৷ তাদের ছবি , জীবনপঞ্জী , ফোন নম্বরও মিলছে সাইট থেকেই৷ তাদের মধ্যে থেকেই সঙ্গী বাছাই করে নিচ্ছে বাংলার নতুন প্রজন্ম৷ তার পর একদিন হয়তো পরিবারকে অন্ধকারে রেখেই তারা ডেটিংয়ে বেড়িয়ে পড়ছেন৷ যৌন সংসর্গেও সাহসী হয়ে উঠছে তারা৷ সব সম্পর্ক যে দানা বাঁধছে , তেমনটা নয়৷ কেউ মাঝপথে সম্পর্কে ইতি টেনে দিচ্ছেন৷ কেউ আবার শেষ পর্যন্ত বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হচ্ছেন৷ তার উল্টো দিকও রয়েছে৷ ডেটিং সাইট থেকে বন্ধু খুঁজে অনেকেই প্রতারিত হচ্ছেন৷ অচেনা বন্ধুর সঙ্গে ডেটিংয়ে বেরিয়ে শারীরিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন অনেকে৷ তার মধ্যে বেশির ভাগই ছাত্র –ছাত্রী৷

মনোরোগ বিশেষজ্ঞ কেদাররঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন , ডেটিং সাইট এবং সোশ্যাল মিডিয়া থেকে বন্ধুত্ব পাতানোর প্রবণতা স্কুল -কলেজের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সবথেকে বেশি করে দেখা যাচ্ছে৷ এই বয়সে ছেলেমেয়েরা নিজেদের বেশি করে “এক্সপ্লোর “ করে৷ আবেগ সামলাতে না -পারে তাদের অনেকে অচেনা “বন্ধুর “ সঙ্গে ডেটিং করছেন৷ সেটা করতে গিয়ে অনেকেই নিজেদের বিপদ ডেকে আনছেন৷ তার ব্যাখ্যা , “যাদের ইমপালস কন্ট্রোল এবং পার্সোনালিটি প্রবলেম তথা ব্যক্তিত্বের সমস্যা আছে তারাই বেশি করে অনলাইনে বন্ধুত্ব পাতায়৷ ক্লাস এইট -নাইনের ছেলেমেয়েরাও বাড়ির লোককে কিছু না জানিয়েই বন্ধুর সঙ্গে বাইরে বেড়াতে চলে যাচ্ছে৷ ফলে ছেলেমেয়ে তো বটেই বাবা -মায়ের উপরও “স্ট্রেস “ তৈরি হচ্ছে৷”

মনোবিদ অনুত্তমা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে, ডেটিংজনিত সমস্যা নিয়ে স্কুল -কলেজের ছাত্র -ছাত্রীরাই বেশি আসছেন৷ তবে এর মধ্যে অন্যায় কিছু দেখছেন না তিনি৷ তার ব্যাখ্যা , “নির্দিষ্ট বয়সে কারও প্রতি রোম্যান্টিক অ্যাট্রাকশন তৈরি হতেই পারে৷ এখন বাচ্চারা অনেক তাড়াতাড়ি মানসিক ভাবে বড় হয়ে ওঠে৷ ছেলে -মেয়ের ইচ্ছা -আকাঙ্ক্ষার সঙ্গে বাবা -মায়েরা নিজেকে মেলাতে পারেন না৷ তার ফলেই সমস্যা দেখা দেয়৷ “ তার পরামর্শ, “ছেলে -মেয়ে বন্ধুর সঙ্গে ডেটিংয়ে যেতে চাইলে তাকে বাধা না দিয়ে সতর্ক করা দরকার এর সম্ভাব্য ক্ষতিকারক দিক থেকে৷ ডেটিংয়ে গিয়ে ছেলেমেয়েরা যাতে তাদের মাত্রা না ছাড়ায় , সেটা বোঝাতে হবে৷ যার সঙ্গে ছেলে -মেয়ে ডেটিং করতে যাচ্ছে তাকেই সে জীবনসঙ্গী বেছে নেবে , এমনটা সবসময় না -ও হতে পারে৷ সে ব্যাপারে বাবা -মাদেরও মানসিক ভাবে তৈরি থাকতে হবে৷ “

 

 

NO COMMENTS