৫ মে শুরু অ্যান্ড্রয়েড উদ্যোক্তাদের মিলনমেলা ‘ড্রয়েডকন ঢাকা-২০১৭’

Credit:- DreamOgrammerS

ডস আইসিটি সলিউশন লিমিটেডের উদ্যোগে অ্যান্ড্রয়েড উদ্যোক্তাদের জন্য (Droidcon 2017 will start from 5th may) বাংলাদেশে এই প্রথমবারের মতো ৫ মে অনুষ্ঠিত হবে দুই দিনব্যাপী  অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপার কনফারেন্স ‘ড্রয়েডকন ঢাকা-২০১৭’।  এ সম্মেলনটি হবে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে। শেষ হবে ৬ মে।

বিশ্বের বৃহত্তম এবং বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ আন্তর্জাতিক অ্যান্ড্রয়েড সম্মেলন। এই সম্মেলনে আমন্ত্রিত হয়ে থাকে বিশ্বের বিভিন্ন টেক-দানব এবং বিশ্বের অ্যান্ড্রয়েড প্রেমীরা। শুরু হয় ২০০৯ সালে একটি অ্যান্ড্রয়েডপ্রেমী আন্তর্জাতিক দলের হাত ধরে, জার্মানিতে।

৫৫ টি বৃহৎ আন্তর্জাতিক অ্যান্ড্রয়েড সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, চীন, ইতালি, দুবাই, স্পেন ইত্যাদি সহ ২৪ টি দেশের ২৬ টি বড় বড় শহরগুলোতে পূর্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে।দেশ ও দেশের বাইরে থেকে তাদের মধ্যে রয়েছেন বিনিয়োগকারী এবং বিভিন্ন কোম্পানির প্রতিনিধিগন আসবেন।

প্রধান অতিথি হিসেবে মাননীয় টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক সেখানে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

বাংলাদেশ সরকারের ২০২১ সালের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ‘ডস আইসিটি সলিউশন লিমিটেড’, ড্রয়েডকন ঢাকা ২০১৭ এর প্রকল্পটি হাতে নিয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা এস মুহাম্মাদ মহি-উস সুন্নাত বলেন আমাদের দেশে বিশ্বমানের অনেক ডেভেলপার রয়েছেন; রয়েছেন হাজারো অ্যান্ড্রয়েড প্রেমী যাদের নিজেদেরকে বিশ্বের দরবারে উজ্জ্বল নক্ষত্র রূপে তুলে ধরার জন্য একটি সঠিক দিক নির্দেশনা এবং একটি বড় প্ল্যাটফর্ম প্রয়োজন। ড্রয়েডকন ঢাকা ২০১৭, তাদেরকে আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্ম প্রদানের মাধ্যমে সঠিক দিক নির্দেশনা দিতে পারবে।

আয়োজকগন এই সম্মেলনের জন্য তিন ধরনের টিকেটের মূল্য নির্ধারণ করেছেন। সেগুলো হলো – শিক্ষার্থী, সাধারণ, এবং ভিআইপি।

টিকেট কিনতে হলে যেতে হবে http://ticketchai.com/details/646/Droidcon-Dhaka-2017 ওয়েবসাইটে।

বুথ স্থাপনের ক্ষেত্রেও মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। বুথের মূল্য সম্পর্কিত তথ্য জানার জন্য info@droidcon.com.bd  ইমেইলে মেইল করতে হবে।

বিস্তারিত droidcon.com.bd ওয়েবসাইটে।

প্রায় ২০-২২ জন বক্তা এবং প্রযুক্তিবিদ্গন দুই দিনব্যাপী বিভিন্ন প্রযুক্তি ভিত্তিক সেমিনারে বক্তব্য দিবেন।

দিনব্যাপী কর্মশালা, হাতে-কলমে অভিজ্ঞতা প্রদান, হ্যাকিং এবং ডিবাগিং যোগ হচ্ছে আলাদাভাবে। প্রদর্শনী অংশে থাকছে ৬০ টিরও বেশি স্টার্ট-আপ কোম্পানি এবং স্পনসর যারা দর্শকদের মাঝে তাদের পণ্য ও প্রকল্প প্রদর্শন করবেন। শেষে থাকবে গেইম এবং অন্যান্য বিনোদন কার্যক্রম।

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নতুন কিছু উদ্ভাবনী প্রকল্পের প্রদর্শন করা হবে। এটি আসলে একটি আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় প্রতিযোগিতা যা বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত বিচারকমণ্ডলী দ্বারা মূল্যায়ন করা হবে। আয়োজক প্রতিষ্ঠানটি বিজয়ী সেরা দুই দলের ভবিষ্যতে প্রকল্প উন্নয়নের জন্য বিশাল আর্থিক পুরষ্কার প্রদানের আশ্বাস দিয়েছেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে সম্মেলনে বাংলাদেশের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের শিক্ষকমণ্ডলী এবং বিভিন্ন কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তারা থাকছেন এবং সেই সাথে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপার এবং ফ্রীল্যান্সার থাকছেন।

NO COMMENTS