GrameenPhone-Bangladesh

গ্রামীণফোনের বাজার মূলধন বেড়ে প্রায় আট বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে, যা বাংলাদেশে তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানির সর্বোচ্চ বাজার মূলধন। একদিনেই এ কোম্পানি বাজার মূলধন দুই হাজার ৭১৪ কোটি টাকা বেড়ে হয়েছে ৬৩ হাজার ৬৫৩ কোটি টাকা।

সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গ্রামীণফোনের প্রতিটি শেয়ারের দর চার দশমিক ২৬ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৪৯১ টাকা ৫০ পয়সা। গ্রামীণফোনের শেয়ারের ইতিহাসে এটাই সর্বোচ্চ দর।

সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান এইমস অব বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী ইয়াওয়ার সায়ীদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এর আগে কখনোই এতো বড় বাজার মূলধনের কোম্পানি দেশের বাজারে লেনদেনে ছিল না।”

সোমবার ঢাকার শেয়ারবাজারে বাজার মূলধন ছিল প্রায় ৪ লাখ ২২ হাজার ৫৪৯ কোটি টাকা, যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। এ হিসেবে মোট বাজার মূলধনের ১৫ দশমিক ৭০ শতাংশ ছিল গ্রামীণফোনের দখলে।

২০০৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার সময় ১০ টাকার শেয়ারে ৬০ টাকা প্রিমিয়াম নিয়ে ৪৮৬ কোটি টাকা বাজার থেকে তুলে নেয় এ কোম্পানি।

বাজার মূলধনের দিক থেকে ডিএসইতে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস; প্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকার মূলধন রয়েছে তাদের।

চলতি বছরের প্রথম দিন গ্রামীণফোনের শেয়ারের লেনদেন শেষ হয়েছিল ২৮৩ টাকায়। এ বছর তাদের বাজার মূলধন বেড়েছে ২৮ হাজার ১৫৪ কোটি টাকা বা ৭৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

২০১৭ সালে ১১ মাসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ২২ দশমিক ২৮ শতাংশ এবং ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ২২ দশমিক ৮১ শতাংশ।

বছরের শুরুতে যেসব বিনিয়োগকারী গ্রামীণফোনে বিনিয়োগ করেছেন; লভ্যাংশসহ এক বছরে তাদের মুনাফা এসেছে ৮০ শতাংশের বেশি।

মোবাইল ফোন সেবাদাতা কোম্পানিগুলোর মধ্যে একমাত্র তালিকাভুক্ত গ্রামীণফোনের শেয়ার দর দ্রুতগতিতে বাড়তে শুরু করে গত জুলাই মাসে। ওই সময় এ শেয়ারে বিদেশি বিনিয়োগও বাড়তে শুরু করে।

জুলাইয়ের ৯ তারিখে গ্রামীণফোনের প্রতিটি শেয়ারের দাম ছিল ৩৩৭ টাকা ৪০ পয়সা। তিন মাসের ব্যবধানে ৪৫ শতাংশের বেশি বেড়ে সোমবার লেনদেন শেষ হয় ৪৯১ টাকা ৫০ পয়সায়। এ সময়ে বাজার মূলধন বেড়েছে প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা।

NO COMMENTS