Photo Credit:- JUDO

জাতীয় পর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তি বিতর্ক উৎসবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) এবং রানার আপ হয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)। চ্যাম্পিয়ন দলের সদস্যরা হলেন- এহসানুর রহমান আবীর, মাহবুবুল ইসলাম, সৈকত ও ইথার আদিব রহমান।

বিজয়ী দলের এহসানুর বলেন, চ্যাম্পিয়ন হতে পেরে ভীষণ ভালো লাগছে। এর আগে আমরা নানা বিষয় নিয়ে বিতর্ক করেছি। এবারই প্রথম তথ্যপ্রযুক্তিকে বিষয় করে বিতর্ক করলাম।

জাতীয় পর্বের বিজয়ীদের ৩টি ম্যাকবুক এবং রানার্স আপ ৩ জনকে ৩টি আইফোন ৬ প্লাস দেয়া হয়। এছাড়া শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছেন চ্যাম্পিয়ন দলের মাহবুবুল ইসলাম। বিজয়ী ১৬টি দলের সদস্যদের ৪৮টি ল্যাপটপ এবং রানার্স আপ ৪৮ জনকে স্মার্টফোন দেয়া হয়। জাতীয় পর্যায়ে সারাদেশের ১৬টি আঞ্চলিক প্রতিযোগিতার বিজয়ী এবং রানার্স আপ ৩২টি দল এ বিতর্কে অংশগ্রহণ করে। গতকাল শনিবার বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তনে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে গেস্ট অফ অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেন, আইসিটি খাতে ২০০ মিলিয়ন কর্মসংস্থানের করতে চাই আমরা। তথ্য-যুক্তি-প্রযুক্তি নির্ভর এমন এক দক্ষ তরুণ প্রজন্ম আমাদের বিনির্মাণ করতে হবে যারা ২০২১ সালের মধ্যে আমাদের মধ্যম আয়ের দেশে উপনীত করতে পারবে।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই এলাহী চৌধুরী। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন আমরা দেখছি সেই স্বপ্ন শুধু তরুণেরাই বাস্তব করতে পারে। সমাজের সর্বস্থরে প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ গড়তে তোমাদেরকেই নেতৃত্ব দিতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ রূপকল্পের পর থেকে গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের প্রতিক্ষেত্রে অগ্রগতি হয়েছে, এর মূলে অন্যতম চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করেছে তথ্যপ্রযুক্তি। তথ্য এবং প্রযুক্তি সকলকে একই প্ল্যাট ফরমে আনতে সক্ষম হয়েছে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY