টাঙ্গাইলের পাচঁ স্কুলছাত্র তৈরি করলো ড্রোন

Credit:- ICT News

মনিরুজ্জামান তালুকদার হৃদয়, সজীব, সুমন রেজা, তৌকির ও ওমর ফারুক ওরা পাঁচ বন্ধু। পাঁচজনই ঘাটাইল ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র। শুক্রবার সকালে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে এই ক্ষুদে পাঁচ বিজ্ঞানীর তৈরি ছোট ড্রোনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠে উড়িয়েছে।

মহান বিজয় দিবসে এই খুদে পাঁচ বিজ্ঞানীর তৈরি একটি ছোট ড্রোন তাদের নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঘাটাইল ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠের আকাশে উড়িয়েছে।

বয়সের বিবেচনায় তারা খুব বেশি বড় নয়। কিন্তু তাদের স্বপ্নটা অনেক বড়। দীর্ঘদিন ধরেই তারা চেষ্টা চালিয়ে আসছিল একটি ড্রোন বানানোর। অবশেষে তাদের সেই চেষ্টা সফল হয়েছে।

ড্রোন তৈরি করা খুদে বিজ্ঞানীদের দলনেতা মনিরুজ্জামান হৃদয় জানায়, তারা গত নভেম্বর মাসে ড্রোনটির নির্মাণকাজ শুরু করে। নির্মাণকাজ শেষ হয় ৫ ডিসেম্বর। এখনো চলছে সেটির উন্নয়নকাজ। ড্রোনটির সঙ্গে ক্যামেরা স্থাপন করার পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া  সাঁতার জানে না এমন কোনো ব্যক্তি যদি নদীর মধ্যে পড়ে যায় তাহলে তাকে বাঁচানোর জন্য ড্রোনটির মাধ্যমে এক কিলোমিটার দূরত্বে লাইফ সাপোর্ট জ্যাকেট পাঠানো যাবে।

৯৫০ গ্রাম ওজনের ড্রোনটি তৈরি করতে তাদের প্রায় ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এটি প্রায় এক কেজি ২০০ গ্রাম ওজনের মালামাল বহন করতে সক্ষম। প্রাথমিকভাবে দেড় কিলোমিটার এলাকায় রিমোট কন্ট্রোলের মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। তারা এটিকে আরো বেশি প্রযুক্তিনির্ভর, আধুনিক ও জনকল্যাণময় করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। যদি প্রতিষ্ঠান বা সরকারের পক্ষ থেকে তাদের সহযোগিতা করা হয় তাহলে আরো উন্নতমানের ড্রোন তৈরি করা সম্ভব।

ক্ষুদে বিজ্ঞানী সুমন রেজা জানায়, তাদের শ্রেণি শিক্ষিকা কামরুন্নাহার ড্রোনটি তৈরি করতে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তাদের উৎসাহ প্রদান ও সহযোগিতা করছেন। এর আগে তারা এয়ার প্লেন, কলিংকারসহ আরো কয়েকটি ইলেকট্রিক যন্ত্র তৈরি করেছেন।

ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের ড্রোন তৈরি সম্পর্কে ঘাটাইল ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ লে. কর্নেল সাহাবউদ্দিন আহাম্মেদ বলেন, ছাত্র-ছাত্রীদের যে কোনো ধরনের বিজ্ঞানমনষ্ক গবেষণাকে আমরা উৎসাহিত করি। আমাদের শিক্ষার্থীদের তৈরি ড্রোনটি বিজয় দিবসের দিন আকাশে উড়ানোর জন্য আমরা বিশেষ ব্যবস্থা করি। ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের এ আবিষ্কার আমাদের জন্য গর্বের।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY