Picture Credit- @SpaceX/twitter

যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি উদ্যোক্তা এলন মাস্কের নতুন রকেট ফ্যালকন হেভি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে আকাশে পরীক্ষামূলক যাত্রা সফলভাবে শুরু করেছে।

গতকাল মঙ্গলবার এ পরীক্ষা চালায় প্রতিষ্ঠানটি। বিশাল আকারের ওই রকেট মহাকাশযান ইতিহাসে সবচেয়ে শক্তিশালী হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

একজন ব্যবসায়ীর খেয়ালি পরীক্ষা বা ঝুঁকিপূর্ণ উদ্যোগ বলে এই রকেট প্রকল্প নিয়ে নানা রকম আশংকা ছিলো। কিন্তু সফল ভাবেই ব্যাপক বেগের সাথে আটলান্টিক মহাসাগরের উপর দিয়ে মহাকাশের উদ্দেশ্যে উড়ে গেছে এটি।

এখনকার দিনে বিশ্বের সবচেয়ে সফল ও মেধাবী উদ্যোক্তাদের একজন ইলন মাস্কের কোম্পানি স্পেস এক্সের পরীক্ষামূলক এই রকেটটি বর্তমান যেকোনো মডেলের থেকে দ্বিগুণ ভার বহন করতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের প্রধান নির্বাহী এলন মাস্ক বলেন, নতুন রকেট তৈরির পর চ্যালেঞ্জ ছিল। কারণ, এর সফলতার হার ছিল ৫০-৫০। বিশাল এক বিস্ফোরণের আশঙ্কা ছিল। সৌভাগ্য যে এ রকম কিছু ঘটেনি।

এলন মাস্কের স্পেসএক্স তৈরি করেছে ফ্যালকন হেভি নামের রকেট। রকেটের পাশে থাকা দুটি বুস্টার রকেট উৎক্ষেপণের তিন মিনিটের মধ্যে পৃথক হয়ে যায়।

এই রকেট ৬৪ টন ওজনের বস্তু পৃথিবীর কক্ষপথে পৌঁছে দেয়ার ক্ষমতা রাখে। যা লন্ডনের রাস্তায় চলা ৫টি দোতলা বাসের সমান।

তবে পরীক্ষামূলক এই মিশনে রকেটটিতে ইলন মাস্ক তুলে দিয়েছেন নিজের ব্যবহৃত একটি পুরনো স্পোর্টস কার। তার ভেতরে বসিয়ে দেয়া হয় একটি ম্যানিকিন। আর ভেতরে বাজছিল ডেভিড বাউয়ির গান। কিন্তু এত জাঁকজমকের সাথে যাত্রা শুরু করা রকেটটির এই মিশনের কোন গন্তব্য নেই।

NO COMMENTS