শীতকালীন ডিজিটাল আইসিটি মেলা সমাপ্তি

Credit:- BBC

সমাপনি অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া ৬ দিনের শীতকালীন আইসিটি মেলার পর্দা নামলো আজ। রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের কম্পিউটার সিটি সেন্টারে শুরু হওয়া শীতকালীন এই মেলা গত ৬ দিন ধরে চলে।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটির উপাচার্য জামিলুর রেজা চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘তথ্যপ্রযুক্তি খাত দেশে একটি বড় স্থান করে নিয়েছে। আশা করি এই তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) দেশের অন্য সব খাতকে অতিক্রম করবে।’

 এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছ, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের সর্বশেষ প্রযুক্তির পণ্য ক্রেতাদের কাছে তুলে ধরছেন এই মেলার মাধ্যমে। ক্রেতারাও তাদের পছন্দ মতো পণ্য কিনছেন। মেলায় বাংলাদেশের শীর্ষ আইসিটি পণ্য আমদানীকারক ও ব্যবসায়ীরা বিশ্বের মানসম্পন্ন ব্র্যান্ডের আধুনিক প্রযুক্তি প্রদর্শনে ব্যাস্ত সময় পার করেছেন।

 মেলা উপলক্ষে এবার বিশেষ আয়োজন হিসেবে ছিলো প্রযুক্তি পণ্যের উপর আকর্ষনীয় মূল্যছাড় ও উপহার সামগ্রী।

সাইবার সিকিউরিটিঃ ‘দা অনলি ওয়ে টু ফ্লাই’  শ্লোগানকে সামনে রেখে  ৮ম বারের মতো অনুষ্ঠিত হলো ডিজিটাল আইসিটি ফেয়ার-২০১৬ (উইন্টার) নামের এ মেলা। প্রতি বছরের মতো এবারের মেলায়  ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য প্রবেশ ফ্রি করা হয়েছে।

মেলার পঞ্চম দিন সোমবার তিনটি বিভাগে ৩০০-এর বেশি শিশুর অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিন্টমেকিং বিভাগের চেয়ারম্যান আবুল বারক আলভী এবং একই অনুষদের সহকারী অধ্যাপক শেখ মো. রোকনুজ্জামান। ‘ক’ বিভাগে চিত্রাঙ্কনের বিষয় ছিল ‘বাংলাদেশ’। এই বিভাগে প্রথম হয়েছে ফারিনা জাহান অর্পিতা, যৌথভাবে দ্বিতীয় হয়েছে অনুভা হালদার ও মিথিলা এবং তৃতীয় হয়েছে ইরফান আহমেদ। ‘খ’ বিভাগে চিত্রাঙ্কনের বিষয় ছিল ‘মুক্তির সংগ্রাম’। এই বিভাগে প্রথম হয়েছে হুমায়রা হাবিব, দ্বিতীয় হয়েছে মারিয়া ইসলাম অবন্তি এবং যৌথভাবে তৃতীয় হয়েছে শাদিয়াআক্তার ও মো. শাহাদাৎ হোসেন। এবং ‘গ’ বিভাগে চিত্রাঙ্কনের বিষয় ছিল ‘পরিবেশ’। এই বিভাগে প্রথম হয়েছে নুসরাত জাহান, দ্বিতীয় হয়েছে মারজান ইসলাম এবং যৌথভাবে তৃতীয় হয়েছে আর্নিকা তাহসীন ও অনামিকা রাজবংশী।

 কম্পিউটার সিটি সেন্টার দোকান মালিক সমিতির সভাপতি ও মেলার আহ্বায়ক তৌফিক এহসান বলেন, ‘প্রতিবছরের তুলনায় এবারের মেলায় আমরা ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। এই ডিজিটাল আইসিটি মেলার ক্রেতা-বিক্রেতা উভয় খুশি হয়েছেন। ডিজিটাল বাংলাদেশের একটি অংশ হিসেবে কাজ করতে পেরে আমরা অনেক আনন্দিত।’

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY